অনলাইন কেনাকাটি তে কিভাবে নিজেকে সাবধানে রাখবেন |

স্রেফ মাউসের কয়েকটা ক্লিক আর শপিংয়ের জন্য মোবাইলের কয়েকটি অ্যাপ— তাই আপনার ঘরে এনে দিচ্ছে প্রয়োজনীয় সব কিছু। গোটা বছরের শপিংটাই সেরে ফেলা যাচ্ছে অনলাইনে।
রোজকার ব্যস্ত জীবনযাপনে নিজের জন্যই নেই দু’দণ্ড সময়! সেখানে আবার শপিং? সকালে অফিস। বাড়ি ফিরতে ফিরতে সন্ধ্যে পেরিয়ে রাত। অফিস আর বাড়ি। ফুরসত নেই হাতে সময় নিয়ে দশটা দোকান ঘুরে শপিং করার। সপ্তাহে একটাই ছুটির দিন, তা-ও কেটে যায় দেখতে দেখতেই। কিন্তু যত দিন গিয়েছে তথ্যপ্রযুক্তিতে এসেছে উন্নয়নের ছোঁয়া। তাই আজ সব কিছুই যেন চলে এসেছে হাতের মুঠোয়। অনলাইন শপিংও তার একটি অঙ্গ।
স্রেফ মাউসের কয়েকটা ক্লিক আর শপিংয়ের জন্য মোবাইলের কয়েকটি অ্যাপ— তাই আপনার ঘরে এনে দিচ্ছে প্রয়োজনীয় সব কিছু। গোটা বছরের শপিংটাই সেরে ফেলা যাচ্ছে অনলাইনে। পুজো হোক বা পয়লা বৈশাখ, অনলাইনে কেনাকাটায় সংশ্লিষ্ট সাইটগুলোর তরফ থেকে ক্রেতাদের জন্য রয়েছে দাম চোকানোর নানা সুবিধাজনক উপায়। রয়েছে বদলানোর সহজ উপায়ও। কাজেই অনলাইনের হাতছানি দিনে দিনে অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠছে।
অনলাইন শপিংয়ের ক্ষেত্রে কার্ড ব্যবহারে সতর্কতা বজায় রাখতে হবে
কিন্তু অনলাইন শপিং আপনার সময় যেমন বাঁচাচ্ছে, তেমনই ডেকে আনছে সর্বনাশও। জেনে নিন, কী কী করলে প্রতারণার হাত থেকে মুক্তি পেতে পারেন—
অনলাইনে জিনিসপত্র কেনার সময় সতর্ক থাকা ছাড়াও দাম চোকানোর বিষয়টাও মাথায় রাখতে হবে। জিনিসপত্র কেনার ব্যাপারে বিভিন্ন উপায় রয়েছে, সেখানে কার্ড মারফত টাকা দেওয়ার বিষয়টিও আছে। কিন্তু কার্ডের মাধ্যমে বা অনলাইন মারফত আপনার টাকা স্থানান্তরের সময়ে প্রতারণার ঘোর আশঙ্কা থাকে।
অনেক ওয়েবসাইটই ভুয়ো। সে সব ক্ষেত্রে সব সময় সতর্কতা অবলম্বন করাটা জরুরি। প্রতিটি ওয়েবসাইটেই থাকবে যোগাযোগের ফোন নম্বর এবং ঠিকানা। যদি তা না থাকে তবে ওয়েবসাইটের অস্তিত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠতে পারে।
অনলাইনে কার্ড ব্যবহারের সময় প্রতারিত হওয়ার আশঙ্কা কমাতে ‘ক্যাশ অন ডেলিভারি’ পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারেন।