জীবনে কাজ না পেয়ে, ঝাড়ুদার থেকে শুরু করে আজ কোটি টাকার কোম্পানির মালিক |

 

শুনে গল্প মনে হলেও এটাই সত্যি| কোথায় আছে কষ্ট করলে কেষ্ট মেলে| ঠিক এমনই একটি ঘটনার সাক্ষী হলো উত্তরপ্রদেশের আলিগড়ের বাসিন্দা এক যুবকের জীবন কাহিনী| সে জীবনে প্রায় সাড়ে চার মাসে ১৭০ এর বেশি কোম্পানিতে চাকরির জন্য আবেদন করার পরে যখন চাকরি পাননি| তখন একপ্রকার বাধ্য হয়েই বিমানবন্দরে সাফাই কর্মী হিসেবে যোগদান করেছিলেন| এবং অতিরিক্ত ইনকামের জন্য খবরের কাগজ বিক্রি করতেন| আর আছেই তিনি একটি বিশাল ডিজিটাল কোম্পানির মালিক|

আমির কুতুব উত্তরপ্রদেশের আলিগড়ের একটি মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন| দ্বাদশ শ্রেণী পাস করার পর কুতুব আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয় মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এর ছাত্র হিসাবে ভর্তি হন| পড়াশোনা শেষ করার পর তিনি প্রথম হোন্ডা কোম্পানিতে কাজ শুরু করেন|

সেখানে যেকোনো কারণেই তার কাজ না ভালো লাগায় আমি স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আবেদন করেন এবং অস্ট্রেলিয়ায় চলে যান| অস্ট্রেলিয়াতে প্রায় সাড়ে চার মাসে তিনি ১৭০ খানা কোম্পানিতে কাজের জন্য আবেদন করেন| কিন্তু কোনভাবেই কোথাও কাজে জয়েন করতে না পেরে| একপ্রকার বাধ্য হয়েই বিমানবন্দরে সাফাই কর্মী হিসেবে যোগদান করেন এবং অতিরিক্ত কামাই এর জন্য তিনি খবরের কাগজ বিক্রি করতেন|

এভাবে জীবন চলতে চলতে হঠাৎ একদিন বাসে আমিরের সঙ্গে এক ব্যক্তি দেখা হয় এবং ওই ব্যক্তি তাকে একটি কাজের অফার করে| এবং আমি তার কাজ করার জন্য সম্মতি প্রদান করেন এবং কাজে লেগে যান | কিছুদিন ধরে আমির ওই ব্যক্তির এক সংস্থার প্রায় ৫০০০ ডলার করে বাঁচিয়ে দিতেন| তারপর ওই ব্যক্তি আমিরকে কিছু ক্লায়েন্টের সাথে পরিচয় করিয়ে দেন|

এভাবে আমি তার নিজের কাজ শুরু করে এবং কঠোর পরিশ্রম করতে থাকে| অবশেষে আমি নিজেই একটি ডিজিটাল ডিজাইনিং সংস্থা খোলেন এবং আজ একটি বড় মঞ্চে কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন| আজ এই কোম্পানির টার্নওভার প্রায় কোটি টাকার মতো| তার কোম্পানিতে বর্তমানে ৩০০ জন অস্থায়ী ও ১০০ জন স্থায়ী কর্মচারী কাজ করছেন|