দিল্লিতে আর যাচ্ছেন না শতাব্দি, দিদির সঙ্গে থাকার কথা জানালেন তিনি

 

 

রাজ্য সংবাদঃ শুভেন্দু অধিকারীর পর অনেক তৃণমূল নেতা বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। আর এবার দেখা যাচ্ছিল শতাব্দিও একবার মুখ ঘুরিয়ে নিচ্ছিল তৃণমূলের কাছ থেকে। তিনিও এবার জানিয়েছিলেন দিল্লিতে যাবেন তিনি। কিন্তু অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠকের পর তিনি জানিয়েছেন দিল্লি আর যাবেন না তিনি। তিনি দিদির সঙ্গে থেকেই তৃণমূলের হয়ে লড়বেন একথা তিনি নিজে জানিয়েছেন। অভিষেকের সঙ্গে বৈঠকের পর তিনি নিজে সন্তুষ্ট হয়েছেন সে কথাও জানিয়েছেন তিনি।

অভিষেকের সঙ্গে বৈঠকের পর সংবাদ মাধ্যমের সামনে এসে শতাব্দি বলেন সব অভিযোগ জানিয়েছে। মমতা দি কে দেখেই আবার রাজনীতিতে আসার কথা ভেবেছি। দিল্লি আর যাচ্ছি না।

দিল্লিতে যাওয়ার কথা জানিয়েছিলেন তৃণমূল সাংসদ শতাব্দি। তিনি বলেছিলেন অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করা কিংবা কথা বলা এটি বড় বিরাট ব্যাপার নয়। এই কথা বলার পরই রাজনৈতিক মহলে বাড়িতে শতাব্দি। শতাব্দি বলেছিলেন আমি এমপি আর উনি মিনিস্টার তাই সাধারণত দেখা তো করতেই পারি। শতাব্দি এই কথা বলার পরেই তৃণমূলের নেতারা, শতাব্দী মন ভাঙ্গাতে মরিয়া হয়ে ওঠেন। প্রথমত এদিন দুপুরে শতাব্দী রায়ের বাড়িতে জান তৃণমূল নেতা কুনাল ঘোষ। দুজনের মধ্যে বেশ কিছুক্ষণ ধরে কথা হয়। এরপরে শতাব্দি কে ফোন করেন দলের বর্ষিয়ান সংসদ সৌগত রায় ও সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিন সন্ধ্যাবেলায় কুনাল ঘোষি শতাব্দি কে নিয়ে যায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের অফিসে গিয়ে ঘন্টা দুয়েক ধরে বোঝানো হয় শতাব্দীকে। শতাব্দি তার নিজের যত অভিযোগ ছিল সব অভিযোগ শুনিয়েছে অভিষেককে। শতাব্দি নিজে জানিয়েছেন, আমি সকল অভিযোগ জানিয়েছে অভিষেককে এবং খুব তাড়াতাড়ি তার সমাধান হবে। আমি নিজে রাজনৈতিক পরিবার থেকে এসেছি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে দেখেই আমি তৃণমূলে যোগ দিয়েছি। আমি এখনো মমতাদির সাথেই আছি,দিল্লি যাচ্ছি না আর। এনিয়ে কুনাল ঘোষ জানিয়েছেন শতাব্দি দলেই থাকছেন।