বাড়িতে কিছুদিনের মধ্যেই পৌঁছে যাবে ডিজিটাল প্রিপেইড বৈদ্যুতিক মিটার সেহেতু অবশ্যই জেনে রাখুন ডিজিটাল মিটারের ব্যবহারের তথ্যগুলি

আমরা অনেক দিন ধরে শুনে চলেছি ইলেকট্রিসিটি তরফ থেকে কিছু পরিবর্তন আনতে চলেছে, সেটি হল ডিজিটাল প্রিপেইড বৈদ্যুতিক মিটার । এটাতে আমরা যা সুবিধা পাব সেগুলি হল, বাড়িতে বসে আমরা বৈদ্যুতিক বিল দেওয়ার সুবিধা পাব, সাথে সাথে যেমন খুশি সেভাবে ব্যবহার করতে পারবো । এই মিটার আসার পরে আমাদের অনেকটাই সুবিধা হবে এভাবেই জানিয়েছে বৈদ্যুতিক দপ্তর । আসুন একনজরে একবার দেখে নি কিভাবে এই বৈদ্যুতিক মিটারটি আমরা ব্যবহার করতে পারব ।

প্রথমত আমরা যেভাবে আমাদের মোবাইল ফোন গুলি রিচার্জ করে থাকি থাকি সেভাবে এই বৈদ্যুতিক মিটারটিও রিচার্জ করতে হবে । কিন্তু সেক্ষেত্রে আমাদের মোবাইলের ব্যালেন্স যেমন ব্যবহার না করলেও সেটি শেষ হয়ে যায় কিন্তু এই বৈদ্যুতিক মিটারের ক্ষেত্রে একটু অন্য । যদি আপনি ব্যবহার না করেন তাহলে আপনার থেকে কোন পয়সা কাটা হবে না । কিন্তু আপনাকে প্রতিমাসে মিটার ভাড়া বাবদ যা দিতে হয় তাহা দিতেই হবে ।

 

আসুন দেখে নিই কিভাবে আমরা এই বৈদ্যুতিক মিটারটি রিচার্জ করতে পারবো |

প্রথমত আমরা ১০০০ টাকা রিচার্জ করলে আমাদের ৭৯২ টাকার ব্যালেন্স দিবে । বাকি ২০৮ টাকা মিটার ভাড়া ও ভ্যাট হিসেবে কেটে নেওয়া হবে । ১০০০ টাকা রিচার্জ করলে আমরা ৭৯২ টাকা পাব কিন্তু আবার যদি এই মাসেই ১০০০ টাকা রিচার্জ করি তাহলে শুধু ৫% সরকারি ভ্যাট কেটে নিয়ে বাকি টাকা টুকু আমরা সবটাই মেইন ব্যালেন্স পাব ।

আসুন দেখে নিই আমরা কি করে দেখতে পারব আমরা কতটা ব্যবহার করেছি ও কতটা আরো ব্যবহার করতে পারব?
যদি আপনি দেখতে চান আপনার মিটারে কত টাকা জমা আছে তাহলে পাশে থাকা বোতামগুলো দিয়ে ৮০১ চাপলে আপনি তা ডিসপ্লেতে দেখতে পাবেন । আপনি আপনার জমা টাকা থেকে কত ইউনিট ব্যবহার করেছেন তা জানার জন্য ৮০০ চাপলে আপনি তা দেখতে পাবেন । আপনি আপনার ইমারজেন্সি ব্যালেন্স চেক করতে চাইলে ৮১০ চাপুন তাহলেই দেখতে পাবেন । আপনি যদি মিটারকে চালু অথবা বন্ধ করতে চান তাহলে ৮৬৮ চাপুন তাহলেই হবে । যদি আপনি জানতে চান আপনার মিটারটি কত কিলোওয়াট পর্যন্ত ব্যবহার করতে পারবেন তাহলে ৮৬৯ চাপলেই তা দেখতে পারবেন ।
আপাতত এসব তথ্য পাওয়া গেছে বৈদ্যুতিক দপ্তর থেকে, বৈদ্যুতিক দপ্তরের তরফ থেকে জানানো হয়েছে গ্রাহকদের সুবিধার্থে এই ডিজিটাল মিটারটি আনা ।