‘বিজেপি ক্ষমতায় এলে ৩৫00 মসজিদ ভেঙে ফেলবে” এমনই চাঞ্চল্যকর দাবি করলেন সাংসদ বদরুদ্দিন আজমল

 

 

রাজ্যসংবাদঃ আর মাত্র কয়েকদিন পরই অসম বিধানসভা নির্বাচন । আর এই আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনকে নিয়ে প্রচারে নেমে পড়েছে শাসক ও বিরোধী দুই দুই পক্ষই । গত দুদিন আগে কংগ্রেস ঘোষণা করেছিল যে, বিজেপিকে ঠেকানোর জন্য তারা প্রায় ৫ টি দলের সাথে জোট বেঁধে নির্বাচনে লড়বেন ।

যে পাঁচটি দলের সাথে কংগ্রেস জোট বেঁধে লড়বেন তার মধ্যে প্রধান হল বদরুদ্দিন আজমল এর দল অল ইন্ডিয়া ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (AIUDF) ।

এআইইউডিএফ আসামে একটি সাম্প্রদায়িক দল হিসেবেই পরিচিত । এই অল ইন্ডিয়া ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট এর সংসদ বদরুদ্দিন আজমল এর একটি সাম্প্রদায়িক মন্তব্যের ফলে আসামের রাজনীতিতে বড় একটি ঝড় উঠেছে ।

অল ইন্ডিয়া ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট এর সাংসদ বদরুদ্দিন আজমল তার নিজের সংসদীয় এলাকা গৌরীপুরের একটি জনসভা সম্বোধন করতে গিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে

বলতে গিয়ে তিনি একটি বিতর্কিত মন্তব্য করেন । এই জনসভা সম্বোধন করতে গিয়ে বদরুদ্দিন আজমল বলেন, বিজেপি দেশের শত্রু, মহিলাদের শত্রু, এবং বিজেপি রাজ্যের প্রায় ৩৫০০ টি মসজিদ ভেঙ্গে ফেলার উপক্রম করেছে । আর এই জন্য বিজেপি একটি তালিকাও তৈরি করে ফেলেছে মসজিদের ।

এদিনেই জনসভায় বদ্রুদ্দিন আজমাল দাবি করেন যে, বিজেপি আবার কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসে তবে সেই মসজিদগুলি ভেঙে ফেলা হবে । তিনি আরো দাবি করে বলেন, অসমে ডিজিপি যদি আবারও ক্ষমতায় আসে তাহলে বোরকা পরা মহিলাদের বাড়ি থেকে বের হতে দেওয়া হবে না ।

তিনি এই বক্তব্যের মাধ্যমে বোঝাতে চাইছেন যে, আবারো যদি বিজেপি রাজ্যের ক্ষমতায় আসে তবে রাজ্যে বোরকা নিষিদ্ধ করা হবে । তবে তিনি এসব দাবি কিসের উপর ভিত্তি করে করেছেন তা কিন্তু খোলসা করে স্পষ্ট ভাবে বলেননি ।

আমরা জানি যে, অসমে কিছুদিন আগেই বর্তমান অসমের সরকার সমস্ত আসামে সরকার দ্বারা পরিচালিত সমস্ত মাদ্রাসা বন্ধ করে দেওয়া হয় । তবে রাজ্যের সমস্ত মাদ্রাসায় নয়, শুধুমাত্র সেইসব মাদ্রাসা যা সরকারি পরিচালিত হতো । এছাড়াও আসামে সমস্ত রকমের ধার্মিক প্রতিষ্ঠান যা সরকারের অনুমোদনের পরিচালিত ছিল এতদিনে সেগুলিও বন্ধ করে দেওয়া হয় ।

 

এক্ষেত্রে আসাম সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়েছিল যে ,সরকারের তরফ থেকে কোন ধার্মিক প্রতিষ্ঠান চালানো হবে না । তবে যেসব বেসরকারি ধার্মিক প্রতিষ্ঠান আছে। সে ক্ষেত্রে সরকার সেইসব ধর্ম প্রতিষ্ঠানগুলোকে পরিচালনা করার জন্য সেই ব্রিটিশ বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো কে অনুমোদন দেন ।

এছাড়াও আমরা কিছুদিন আগে দেখেছি অসীম সরকারের মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা আগেই বলেছিলেন যে, আসামে যদি পুনরায় বিজেপি সরকার আসে ।

তবে সে ক্ষেত্রে আইন করে আসামের লাভ জিহাদ কে বন্ধ করা হবে । সে ক্ষেত্রে তিনি বলেছিলেন যে, নিজের ধর্মীয় পরিচয় গোপন রেখে হিন্দু মেয়েদের সাথে যদি কেউ প্রতারণা করে । তবে সে ক্ষেত্রে সরকার তা বরদাস্ত করবে না । এর সাথে সাথে তিনি আরও বলেছিলেন যে, আজমলের ছেলেরা হিন্দু মেয়েদের ফাঁসাচ্ছেন । এর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেবেন ।

তবে অল ইন্ডিয়া ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের সাংসদ বদরুদ্দিন আজমল এর এমন সাম্প্রদায়িক মন্তব্যের ফলে বিপাকে পড়ে কংগ্রেস । কংগ্রেস গোটা দেশে যেখানে ধর্মনিরপেক্ষতার কথা বলে সেখানে তাদের জোট সঙ্গী নেতাদের এমন সাম্প্রদায়িক উস্কানিমূলক বক্তব্যের ফলে প্রশ্নের মুখে পড়তে হয় কংগ্রেসকে ।