রেলের নতুন নিয়ম অনুসারে, টিকিট কাটার সময় মোবাইল নাম্বার দিতে হবে ,নাহলে সমস্যায় পরতে পারেন যাত্রাপথে 

 

আপনি কি রেলে টিকিট কাটার সময় নিজের মোবাইল নাম্বার দেন কাউন্টারে ? যদি দিয়ে থাকেন তাহলে তো খুবই ভাল কিন্তু যদি না দিয়ে থাকেন তাহলে আপনি পরতে পারেন বড় সমস্যায় । এরকম অনেকেই আছেন যারা এজেন্ট এর মাধ্যমে টিকিট কেটে থাকেন কিন্তু মোবাইল নাম্বার দেন না ।কিন্তু এবার থেকে নাম্বার না দিলেই আপনি পরতে পারেন বড় সমস্যায় কারন এবারের নতুন সময়সূচি আনুসারে,মোবাইলেই ট্রেন এর আপডেট দেওয়া হবে । তবে যাত্রিদের নাম্বার না দেওয়ার কারনে তাদেরকে আপডেট দেওয়া যায় না বলে রেল কতাদের অভিযোগ যাত্রিদের ঘারে চাপানো হচ্ছে ।

 

এবার থেকে রেলের তরফ থেকে স্পষ্ঠ জানানো হয়েছে যে ,যদি টিকিট কাটার সময় যদি কেউ মোবাইল নাম্বার যোগ না করে  তবে তাদেরক এবার থেকে পরতে হবে বিশাল সমস্যায়। নতুন রেলের সময়সূচি অনুযায়ি মোবাইল নাম্বারে ট্রেন ছারার সময় জানানো হবে । আর কেউ যদি সময় জানতে না পারে তাহলে তার সে ট্রেন  ধরতে পারবে না।  তাই নাম্বার দেওয়া আবশ্যক। 

দীর্ঘ দিন বন্ধের পর এখন ট্রেন চললেও সব স্টেশনে ট্রেন দাঁড়ায় না তাই সময়ের অনেক পরিবর্তন হয়ে গেছে .।বিশেষ করে জিরো আওয়ার বেস্ট টাইম টেবিলের জন্য আরও বেশি করে সময়ের বদল ঘটিয়েছে, যেটা সাধারন যাত্রিদের বেশি ভাগই জানে না। এর ফলে তারা আগের নিয়ম অনুযায়ী চলার ফলে অনেকে ট্রেন ধরতে পারে না ও অনেক এর ট্রেন মিস করে ফেলে।তাই রেল কর্তী পক্ষের তরফ থেকে যাত্রিদের ঘারেই এই দোষ চাপানো হয়েছে। 

 

পূর্ব রেলের তরফ থেকে জানানো হয়েছে অনেক যাত্রী এজেন্টের কাছ থেকে টিকিট কাটার সময় নিজের মোবাইল নাম্বার দেয় না। যে কারণে এজেন্টের কাছ থেকে যে সব যাত্রী টিকিট কাটে তাদের সাথে পরবর্তী সময়ে যোগাযোগ করা সম্ভব হয় না।

 

চলতি ডিসেম্বর মাসেই চালু হচ্ছে জিরো বেস্ট টাইম টেবিল, আর মোবাইল নাম্বার যোগ না করার ফলে  বহু যাত্রী ট্রেনের টাইম টেবিল না জানার ফলে ট্রেন মিস করবেন। আর এই কারনেই বিভিন্ন স্টেশনে ট্রেন ধরতে পারার ফলে যাত্রীদের বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন, সম্প্রতি কিছুদিন আগে হাওড়া স্টেশনে এই ধরনের বিক্ষোভ ঘটে। কারণ হাওড়ায় নতুন টাইম টেবিল অনুসারে ট্রেন  চালু হয়ে গেছে।