সিডনিতে দ্বিতীয় ম্যাচ হারের পর, অধারাবাহিক বোলিং কেই দায়ী করলেন বিরাট ..

 

রাজ্য সংবাদ: দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচের হারকে রাগ-টাগ না করেই মেনে নিলেন কোহলি| দ্বিতীয় ওয়ানডেতে অস্ট্রেলিয়ার কাছে ৫১ রানে হারের ইন্ডিয়া এবং এর সাথে সাথেই ওয়ানডে সিরিজ হেরে যায়| তবে হতাশাজনক ফলাফলের জন্য তিনি অধারাবাহিকভাবে বোলিংকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করলেন|

সম্প্রতি, প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার বিশাল বড় রান টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৬৬ রানে হার স্বীকার করেন প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে বিরাট কোহলি টিম| আর খারাপ পারফরম্যান্সের নিরিখে দ্বিতীয় ম্যাচ প্রথম ম্যাচ কেউ হার মানালো ভারতীয় বোলাররা| ভারতে সামনে অস্ট্রেলিয়া লক্ষ্য রাখে ৩৯০ রানের| নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৩৩৮ রানের বেশি করতে ব্যর্থ হয় ইন্ডিয়া টিম| আর ৫১ রানে হেরে যায় ভারতের টিম| আর এই ৫১ রানে হেরে সিরিজ করানোর পর ভারত অধিনায়ক বলেন,” অস্ট্রেলিয়া আমাদের সম্পূর্ণভাবে উড়িয়ে দিয়েছে, বলাতে ভারতীয় বোলাররা এক্কেবারে নিষ্ক্রিয় ছিল”| যেভাবে আমাদের বোলারদের বল করার দরকার ছিল| সেখানে আমাদের বোলাররা ধারাবাহিকভাবে ব্যর্থ হয়| যার কারণেই পরপর দুটি ম্যাচ হারার পর সিরিজ হাতছাড়া হয়ে যায়|
অপরদিকে শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনআপ চেনা পরিবেশ নিয়ে মাঠে নামে অস্ট্রেলিয়া টিম| বিরাট কোহলি বলেন অস্ট্রেলিয়া তাদের চেনা পরিবেশ কে কাজে লাগিয়ে খুব ভালো খেলেছেন| তিনি বলেন আমরা রান তাড়া করতে নেমে ৩৪০ অন করেছি কিন্তু তবুও আমরা প্রায় ৫০ রান পিছিয়ে পড়েছি| সুতরাং এই পরিবেশে রান তাড়া করাটা ছিল খুবই কষ্টসাধ্য বিষয়| আর একটা উইকেট হারানো মানেই প্রয়োজনীয় রান রেট বেড়ে যাওয়া| যাস এই পরিবেশে প্রচণ্ড চাপের হয়ে উঠে| না হলে আরো লড়াই করার মত হতে পারত| প্রীতি তো দিতেই হবে বল হাতেও ওরা যথেষ্ট ধারাবাহিকতা দেখিয়েছে|

অধিনায়ক কোহলি জানান তারও সিএসআইআর এর কেস দুটো ম্যাচের নির্ণায়ক হয়ে উঠেছে| গেমপ্লের বিষয়ে কহলির মত,” আমি এবং রহুল ৪০-৪১ অব্দি উইকেটে থাকতে চেয়েছিলাম| এবং শেষ ১০ ওভারে যদি একশ রানও তুলতে হতো তাহলেও হাতে ছিল হার্দিক পান্ডিয়া| সুতরাং ম্যাচ হাতে থাকতো| কিন্তু ওই দুটোকে নির্ণায়ক করে দিয়ে গেল|

অস্ট্রেলিয়ার, স্টিভ স্মিথ এর শতরান(৬৪ বলে ১০৪ রান) সহ বেটিং ওয়াটার এর প্রথম পাঁচ ব্যাটসম্যানের অর্ধশত রানের ভর করে অস্ট্রেলিয়ায় দিন প্রথমে ব্যাট করতে নেমে চার উইকেট হারিয়ে ৩৮৯ রান তোলে| জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৯ উইকেটে ৩৩৮ রান তুলতে সমর্থ হয় দল| এদিন সর্বাধিক ৮৯ রান করেন বিরাট কোহলি| ৭৮ রান আসে রাহুলের ব্যাট থেকে