কৃষি আইনের সুবিধা নিয়ে ফের বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি

 

 

 

রাজ্যসংবাদঃ  গত কয়েকদিন ধরেই কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে অনড় লক্ষ লক্ষ কৃষকদের ফের বার্তা বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। শনিবার তিনি উদ্দেশ্যে বার্তা দিয়ে বলেন, “সরকার কৃষকদের জন্য দায়বদ্ধ ” । বর্তমান সরকার কৃষকদের কথা মাথায় রেখেই এই নতুন আইন এনেছেন।

প্রধানমন্ত্রী কৃষকদের বার্তার মাধ্যমে মাধ্যমে বোঝাতে চেয়েছেন,” এই আইনের ফলে কৃষকরা বাজারের বিষয়ে আরো বিস্তারিত জানতে পারবেন ও বাজারের সাথে ঘনিষ্ঠতা বাড়বে। এর ফলে কৃষকরা আরো বেশি বেশি প্রযুক্তির সুবিধা নিতে পারবেন। কৃষি ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করার জন্য কৃষকদের কাছে আরো রাস্তা খুলে যাবে, এতে সার্বিকভাবে কৃষকদের ও দেশের অর্থনৈতিক উন্নতি হবে”।

কিন্তু আন্দোলনকারী কৃষকদের মতে এই আইনটি তৈরি করা হয়েছে বেসরকারি সংস্থার জন্য বলে মনে করছেন কৃষক ভারত কৃষক সভা নেতৃত্বে চলা অন্যান্য কৃষক সংগঠনগুলির। এই বাম সংগঠন গুলির পাশে এসে দাঁড়িয়েছে বিভিন্ন সংগঠন ও কেন্দ্র ট্রেড ইউনিয়ন। বিজেপি বিরোধী দলগুলি যেমন বাম কংগ্রেস অন্যান্য দলগুলির দাবি, নতুন কৃষি আইন দেশের কৃষিক্ষেত্রে কর্পোরেট সংস্থার হামলা ডেকে আনছে।

আর এই কারনেই আন্দোলনকারী সব বিরোধী দলগুলি দাবি অবিলম্বে কেন্দ্রের কৃষি আইন বাতিল করা হোক। এই বাতিল করার দাবি নিয়ে কৃষক ও অন্যান্য বিরোধী দলগুলি রাজধানী নয়াদিল্লি কে ঘিরে রেখেছ. . .

ধরা হচ্ছে অন্তত ১২ লক্ষ কৃষক টানা ১৭ দিন হল ওবরত রাজধানী ঘেরাও এ শামীম রয়েছেন। এছাড়াও কৃষকদের এই আন্দোলনে যোগ দেওয়ার জন্য বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আরো লক্ষাধিক কৃষক রাজধানীর দিকে আসছেন বলে দাবি করছেন বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃত্বরা।

দেশবাসী দেখেছে গত কয়েকদিন আগেই আন্দোলনকারীদের ডাকে বন্ধ পালন করা হয়েছিল। আবারও একবার সরকারকে হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে যদি সরকার এই আইন তুলে না নেয় পরবর্তীকালে রেল রোকো ও টোলপ্লাজা অবরোধ করার মতন পদক্ষেপ নেওয়া হবে। আর এই হুঁশিয়ারি ও বিক্ষোভের কারণে ইতিমধ্যেই সরকারের মাথায় চিন্তার ভাঁজ পড়েছে।

কৃষকদের এই বিক্ষোভের অন্যতম নেতা সারা ভারত কিষান সভার সাধারণ সম্পাদক হান্নান মোল্লা জানিয়েছেন, সরকারের আনা এ নতুন কৃষি আইন কে কোন মতেই মেনে নেওয়া হবে না। সরকারকে এই নতুন আইন বাতিল করতেই হবে। আর এই দাবীতে সম্মত হয়েছেন অন্যান্য কৃষক সংগঠনগুলিও।